Home / বাংলা হেল্‌থ / যুক্তরাষ্ট্র অ্যাসাঞ্জকে নিয়ে গিয়ে ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড দিতে পারে

যুক্তরাষ্ট্র অ্যাসাঞ্জকে নিয়ে গিয়ে ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড দিতে পারে

র কারাদণ্ড দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন অ্যাসাঞ্জের বাবা জন শিপটন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র অ্যাসাঞ্জকে সে দেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এবং সেখানে নিয়ে অ্যাসাঞ্জের উপর নির্যাতন চালানো হতে পারে।জন শিপটন বলেন, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্র নিয়ে যেতে পারলে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে তাকে ১৭৫ বছরের জেল দিতে পারে। তাকে কলোরাডোর ফ্লোরেন্সের ফেডারেল সুপারম্যাক্স কারাগারে পাঠানো হতে পারে। যেখানে ২৩ ঘণ্টা তাকে একা থাকতে হতে পারে একটি কক্ষে। খবর দ্যা ইন্ডিপেনডেন্টের

জন শিপটন আরও বলেন, জাতীয় নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগের ফলে অ্যাসাঞ্জকে বিশেষ প্রশাসনিক ব্যবস্থার অধীন রাখা হতে পারে। এমন ব্যবস্থা অভিযুক্ত সন্ত্রাসীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়; যেখানে তাদের প্রায় সারা দিন কারাপ্রকষ্ঠে অন্য বন্দীদের থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকতে হয় ও বাইরের বিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগ হয় খুব কমই।

বিভিন্ন রাষ্ট্রের দুর্নীতি ও অনিয়মের গোপন নথি ফাঁস করে আলোচনায় আসা প্রতিষ্ঠান উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ দীর্ঘদিন লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। ২০১৯ সালের এপ্রিলে ইন্টারপোলের একটি গ্রেফতারি পরোয়ানার ভিত্তিতে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাস থেকে গ্রেফতার করা হয় জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন মামলায় তাকে লন্ডনের একটি আদালতে হাজির করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে তিনি সর্বোচ্চ সুরক্ষিত বেলমার্শ কারাগারে আটক রয়েছেন। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করা হবে কিনা সে বিষয়ে সোমবার রায় ঘোষণা করবে যুক্তরাজ্যের আদালত।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির ১৭টি অভিযোগ ও এক দশক আগে কম্পিউটারের অপব্যবহার করে উইকিলিকসের মাধ্যমে অসংখ্য গোপন মার্কিন সামরিক নথি ফাঁস করার আরেকটি অভিযোগ এনেছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার সর্বোচ্চ ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

র কারাদণ্ড দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন অ্যাসাঞ্জের বাবা জন শিপটন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র অ্যাসাঞ্জকে সে দেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এবং সেখানে নিয়ে অ্যাসাঞ্জের উপর নির্যাতন চালানো হতে পারে।জন শিপটন বলেন, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্র নিয়ে যেতে পারলে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে তাকে ১৭৫ বছরের জেল দিতে পারে। তাকে কলোরাডোর ফ্লোরেন্সের ফেডারেল সুপারম্যাক্স কারাগারে পাঠানো হতে পারে। যেখানে ২৩ ঘণ্টা তাকে একা থাকতে হতে পারে একটি কক্ষে। খবর দ্যা ইন্ডিপেনডেন্টের

জন শিপটন আরও বলেন, জাতীয় নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগের ফলে অ্যাসাঞ্জকে বিশেষ প্রশাসনিক ব্যবস্থার অধীন রাখা হতে পারে। এমন ব্যবস্থা অভিযুক্ত সন্ত্রাসীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়; যেখানে তাদের প্রায় সারা দিন কারাপ্রকষ্ঠে অন্য বন্দীদের থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকতে হয় ও বাইরের বিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগ হয় খুব কমই।

বিভিন্ন রাষ্ট্রের দুর্নীতি ও অনিয়মের গোপন নথি ফাঁস করে আলোচনায় আসা প্রতিষ্ঠান উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ দীর্ঘদিন লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। ২০১৯ সালের এপ্রিলে ইন্টারপোলের একটি গ্রেফতারি পরোয়ানার ভিত্তিতে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাস থেকে গ্রেফতার করা হয় জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন মামলায় তাকে লন্ডনের একটি আদালতে হাজির করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে তিনি সর্বোচ্চ সুরক্ষিত বেলমার্শ কারাগারে আটক রয়েছেন। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করা হবে কিনা সে বিষয়ে সোমবার রায় ঘোষণা করবে যুক্তরাজ্যের আদালত।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির ১৭টি অভিযোগ ও এক দশক আগে কম্পিউটারের অপব্যবহার করে উইকিলিকসের মাধ্যমে অসংখ্য গোপন মার্কিন সামরিক নথি ফাঁস করার আরেকটি অভিযোগ এনেছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার সর্বোচ্চ ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

র কারাদণ্ড দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন অ্যাসাঞ্জের বাবা জন শিপটন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র অ্যাসাঞ্জকে সে দেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এবং সেখানে নিয়ে অ্যাসাঞ্জের উপর নির্যাতন চালানো হতে পারে।জন শিপটন বলেন, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্র নিয়ে যেতে পারলে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে তাকে ১৭৫ বছরের জেল দিতে পারে। তাকে কলোরাডোর ফ্লোরেন্সের ফেডারেল সুপারম্যাক্স কারাগারে পাঠানো হতে পারে। যেখানে ২৩ ঘণ্টা তাকে একা থাকতে হতে পারে একটি কক্ষে। খবর দ্যা ইন্ডিপেনডেন্টের

জন শিপটন আরও বলেন, জাতীয় নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগের ফলে অ্যাসাঞ্জকে বিশেষ প্রশাসনিক ব্যবস্থার অধীন রাখা হতে পারে। এমন ব্যবস্থা অভিযুক্ত সন্ত্রাসীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়; যেখানে তাদের প্রায় সারা দিন কারাপ্রকষ্ঠে অন্য বন্দীদের থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকতে হয় ও বাইরের বিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগ হয় খুব কমই।

বিভিন্ন রাষ্ট্রের দুর্নীতি ও অনিয়মের গোপন নথি ফাঁস করে আলোচনায় আসা প্রতিষ্ঠান উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ দীর্ঘদিন লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। ২০১৯ সালের এপ্রিলে ইন্টারপোলের একটি গ্রেফতারি পরোয়ানার ভিত্তিতে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাস থেকে গ্রেফতার করা হয় জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন মামলায় তাকে লন্ডনের একটি আদালতে হাজির করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে তিনি সর্বোচ্চ সুরক্ষিত বেলমার্শ কারাগারে আটক রয়েছেন। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করা হবে কিনা সে বিষয়ে সোমবার রায় ঘোষণা করবে যুক্তরাজ্যের আদালত।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির ১৭টি অভিযোগ ও এক দশক আগে কম্পিউটারের অপব্যবহার করে উইকিলিকসের মাধ্যমে অসংখ্য গোপন মার্কিন সামরিক নথি ফাঁস করার আরেকটি অভিযোগ এনেছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার সর্বোচ্চ ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

র কারাদণ্ড দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন অ্যাসাঞ্জের বাবা জন শিপটন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র অ্যাসাঞ্জকে সে দেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এবং সেখানে নিয়ে অ্যাসাঞ্জের উপর নির্যাতন চালানো হতে পারে।জন শিপটন বলেন, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্র নিয়ে যেতে পারলে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে তাকে ১৭৫ বছরের জেল দিতে পারে। তাকে কলোরাডোর ফ্লোরেন্সের ফেডারেল সুপারম্যাক্স কারাগারে পাঠানো হতে পারে। যেখানে ২৩ ঘণ্টা তাকে একা থাকতে হতে পারে একটি কক্ষে। খবর দ্যা ইন্ডিপেনডেন্টের

জন শিপটন আরও বলেন, জাতীয় নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগের ফলে অ্যাসাঞ্জকে বিশেষ প্রশাসনিক ব্যবস্থার অধীন রাখা হতে পারে। এমন ব্যবস্থা অভিযুক্ত সন্ত্রাসীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়; যেখানে তাদের প্রায় সারা দিন কারাপ্রকষ্ঠে অন্য বন্দীদের থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকতে হয় ও বাইরের বিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগ হয় খুব কমই।

বিভিন্ন রাষ্ট্রের দুর্নীতি ও অনিয়মের গোপন নথি ফাঁস করে আলোচনায় আসা প্রতিষ্ঠান উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ দীর্ঘদিন লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। ২০১৯ সালের এপ্রিলে ইন্টারপোলের একটি গ্রেফতারি পরোয়ানার ভিত্তিতে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাস থেকে গ্রেফতার করা হয় জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন মামলায় তাকে লন্ডনের একটি আদালতে হাজির করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে তিনি সর্বোচ্চ সুরক্ষিত বেলমার্শ কারাগারে আটক রয়েছেন। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করা হবে কিনা সে বিষয়ে সোমবার রায় ঘোষণা করবে যুক্তরাজ্যের আদালত।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির ১৭টি অভিযোগ ও এক দশক আগে কম্পিউটারের অপব্যবহার করে উইকিলিকসের মাধ্যমে অসংখ্য গোপন মার্কিন সামরিক নথি ফাঁস করার আরেকটি অভিযোগ এনেছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার সর্বোচ্চ ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

র কারাদণ্ড দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন অ্যাসাঞ্জের বাবা জন শিপটন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র অ্যাসাঞ্জকে সে দেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য সব ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এবং সেখানে নিয়ে অ্যাসাঞ্জের উপর নির্যাতন চালানো হতে পারে।জন শিপটন বলেন, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্র নিয়ে যেতে পারলে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে তাকে ১৭৫ বছরের জেল দিতে পারে। তাকে কলোরাডোর ফ্লোরেন্সের ফেডারেল সুপারম্যাক্স কারাগারে পাঠানো হতে পারে। যেখানে ২৩ ঘণ্টা তাকে একা থাকতে হতে পারে একটি কক্ষে। খবর দ্যা ইন্ডিপেনডেন্টের

জন শিপটন আরও বলেন, জাতীয় নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগের ফলে অ্যাসাঞ্জকে বিশেষ প্রশাসনিক ব্যবস্থার অধীন রাখা হতে পারে। এমন ব্যবস্থা অভিযুক্ত সন্ত্রাসীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়; যেখানে তাদের প্রায় সারা দিন কারাপ্রকষ্ঠে অন্য বন্দীদের থেকে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকতে হয় ও বাইরের বিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগ হয় খুব কমই।

বিভিন্ন রাষ্ট্রের দুর্নীতি ও অনিয়মের গোপন নথি ফাঁস করে আলোচনায় আসা প্রতিষ্ঠান উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ দীর্ঘদিন লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন। ২০১৯ সালের এপ্রিলে ইন্টারপোলের একটি গ্রেফতারি পরোয়ানার ভিত্তিতে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাস থেকে গ্রেফতার করা হয় জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন মামলায় তাকে লন্ডনের একটি আদালতে হাজির করা হয়। গ্রেফতার হওয়ার পর থেকে তিনি সর্বোচ্চ সুরক্ষিত বেলমার্শ কারাগারে আটক রয়েছেন। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করা হবে কিনা সে বিষয়ে সোমবার রায় ঘোষণা করবে যুক্তরাজ্যের আদালত।

অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির ১৭টি অভিযোগ ও এক দশক আগে কম্পিউটারের অপব্যবহার করে উইকিলিকসের মাধ্যমে অসংখ্য গোপন মার্কিন সামরিক নথি ফাঁস করার আরেকটি অভিযোগ এনেছে যুক্তরাষ্ট্র। এসব অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার সর্বোচ্চ ১৭৫ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

Check Also

আসুন জেনে নেই আদার অজানা উপকার

আদা এমন একটি উদ্ভিদ মূল যা মানুষের খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয়। আবার মশলা জাতীয় ফসলের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *